নিরপেক্ষ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রীর ওপর আমাদের আস্থা আছে – ইসলামি ফ্রন্টের চেয়ারম্যান এম এ মতিন

নিরপেক্ষ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রীর ওপর আমাদের আস্থা আছে – ইসলামি ফ্রন্টের চেয়ারম্যান এম এ মতিন

পটিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা : ইসলামি ফ্রণ্টের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মাওলানা  এম এ মতিন বলেছেন, নিরপেক্ষ ও অবাধ নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা।  তার কথায় আমাদের আস্থা ও বিশ্বাস আছে। আমরা আশা করি আসন্ন জাতীয় নির্বাচন নিরপেক্ষ অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক হবে।

তিনি বলেন, ইসলামী ফন্টের কর্মীরা জনগণের পাশে ছিল এবং পাশে থাকবে। সংগঠনের পক্ষ থেকে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কেন্দ্রে গিয়ে মোমবাতি মার্কায় ভোট দেয়ার জন্য তিনি ভোটারদের আহ্বান জানান।

গতকাল শনিবার সকাল ১১ টায় পটিয়া দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ও পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

মাওলানা এম এ মতিন বলেন, পটিয়ায় অনেক উন্নয়ন করার এখনো বাকি আছে। দক্ষিণ চট্টগ্রামে এখনো কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়নি। নির্বাচিত হলে তিনি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দক্ষিণ চট্টগ্রামের শিক্ষার উন্নয়নে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবেন এবং  প্রাচীন মহকুমা শহর পটিয়াকে জেলা করার পদক্ষেপ নিবেন বলে জানান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন তার দল বিশ্বাস করে না। যদি নির্বাচন কমিশন স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করতে চায় তাহলে বিদ্যমান আইনেই তা করা সম্ভব। এজন্য অন্তত পাঁচটি মন্ত্রণালয় নির্বাচনকালীন সরকারের অধীন থেকে নির্বাচন কমিশনের অধীনে হস্তান্তর করতে হবে। বিগত তত্ত্বাবধায় সরকারের আমলে যেসব নির্বাচন হয়েছে সেগুলো নিয়েও পরাজিত দল প্রশ্ন তুলেছে।

কাজেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার হলেই নির্বাচন অবাধ নিরপেক্ষ হবে-তার দল এই থিওরিতে বিশ্বাস করে না।

মাওলানা এম এ মতিন বলেন, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় আমার দল নির্বাচনকে বেছে নিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট আবু নাছের তালুকদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য এম সোলাইমান ফরিদ, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আলী হোসাইন, পটিয়া উপজেলা পূর্ব পরিষদদের সভাপতি সৈয়দ এয়ার মুহাম্মদ পেয়ারু, পশ্চিম পরিষদের সভাপতি জননেতা মাষ্টার জামাল আহমদ, পৌরসভার সাধারণ সম্পাদক জননেতা অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম আলকাদেরী, যুবসেনা কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি জামাল উদ্দীন রব্বানী,ছাত্রসেনা কেদ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ছাত্রনেতা নুর রায়হান চৌধুরী প্রমুখ।

Related Articles