হুইপের মামলায় পটিয়ায় আওয়ামী লীগের ৫ নেতা জামিনে মুক্ত

হুইপের মামলায় পটিয়ায় আওয়ামী লীগের  ৫ নেতা জামিনে মুক্ত

পটিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা : চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সামশুল হক চৌধুরীর মামলায় জামিন পেয়েছেন পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য প্রজ্ঞাজোতি বড়ুয়া লিটন (৫২), যুবলীগ নেতা মঈন উদ্দিন মনির (৪৮), মাহমুদুল হাসান মিছবাহ (২৫), নাফিস ইকবাল (২২) ও সাদমান বিন আসাদ (১৮)।

২ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম-৩ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত থেকে তারা জামিন পেয়ে রাতে কারাগার থেকে বের হয়েছেন।

এর আগে স্বতন্ত্র প্রার্থী সামশুল হক চৌধুরীর
ছোট ভাই মুজিবুল হক চৌধুরী নবাব বাদী হয়ে পটিয়া থানায় ১৩জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর গাড়িবহরে হামলা ও গাড়িভাংচুরের অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় উপজেলা আ’লীগের সদস্য লিটন বড়ুয়াসহ ৫জনকে আটক করা হয়।
পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি আ.ক.ম. শামসুজ্জামান চৌধুরী জানিয়েছেন, দলীয়
মনোনয়ন না পেয়ে সামশুল হক চৌধুরী বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে পটিয়ায় দলের প্রার্থী মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করছেন।

তিনি মামলা, হামলা ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করছেন। নানা ঘটনা সাজিয়ে দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা দিয়ে হয়রানি করছেন। আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় সংসদ নির্বাচনে
ব্যালেটের মাধ্যমে এর জবাব দেওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রস্তুত। জামিনে মুক্ত হওয়ার পর নৌকার প্রার্থী মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরীর দলীয় কার্যালয়ে এক সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ.ক.ম. শামসুজ্জামান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা: তিমির বরণ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা উপ কমিটির সদস্য তসলিম উদ্দিন রানা, কচুয়াই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইনজামুল হক জসিম, কাউন্সিলর গোফরান রানা, রবিউল হোসেন রুবেল, শেখ মোহাম্মদ বেলাল, নোমান টিপু, শাহজাহান, জসিম উদ্দিন।

পটিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর গোফরান রানা কারামুক্ত নেতাদের সম্বর্ধনা সভায় বলেন, হুইপ সামশুল হক চৌধুরী পটিয়ায় বিগত ১৫ বছর আওয়ামী লীগের কর্মীদের ওপর যে নির্মম নির্যাতন, জেল জুলুম চালিয়ে গেছেন তা নজিরবিহীন।

নির্বাচনের সময়ও হুইপ এই পর্যন্ত অর্ধডজন মামলা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা কর্মী দের বিরুদ্ধে।  তার এই সব অপকর্মের জবাব ৭ জানুয়ারি ব্যালটের মাধ্যমে দিতে হবে।

তিনি বলেন, ধৈর্যের বাঁধ যদি ভেঙে যায় কোন অপশক্তিকে ছেড়ে দেয়া হবে না।

Related Articles