লুটেরা ব্যবসায়ীদের কারণে মানুষের জীবন অতীষ্ঠ হয়ে ওঠছে : কমরেড শাহআলম

লুটেরা ব্যবসায়ীদের কারণে মানুষের জীবন অতীষ্ঠ হয়ে ওঠছে : কমরেড শাহআলম
পটিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা :   বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কমরেড শাহ আলম বলেছেন, লুটেরা ব্যবসায়ীরা বাধাহীনভাবে রাষ্ট্রের সহায়তায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সেক্টরে লুটপাট করছে। মানুষ যেন আইনের আশ্রয় নিতে ও প্রতিবাদ করতে না পারে সরকার ইডেমনেটি দিয়ে রেখেছে। 
তিনি বলেন, তেল দিয়ে সরকার বিদ্যুৎকেন্দ্র চালাচ্ছে। এর জন্য প্রতি ইউনিটে ১৭ টাকা খরচ পড়ে। আর গ্যাসে বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ পড়ে ৪ টাকার কাছাকাছি, কয়লায় পড়ে ৬ টাকা, গ্যাসে উৎপাদিত বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো ব্যবহার করছে কম, বেসরকারি বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো চলছে অধিক মাত্রায় আর সরকারি কেন্দ্রগুলো বসে আছে। গ্যাসে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হলে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হয়না। বরং বর্তমান থেকে আরো কম দামে উৎপাদন ও মানুষের ব্যবহারে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যায়। এখানেই রয়েছে শুভঙ্করের কারসাজি।  যারা মানুষের ট্যাক্সের টাকা লোপাট করছে এই গণদুশমন ও দেশের সম্পদ লোপাটকারিদের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন ও গন সংগ্রামের কোন বিকল্প নেই। বার বার বিদ্যুৎ-গ্যাসসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করে সাধারন মানুষের জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে। এটিই বর্তমান সরকার বছরের পর বছর করছে।
গতকাল শুক্রবার (৮ মার্চ) সকালে পটিয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) পটিয়া উপজেলা কমিটির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
কমরেড শাহ আলম আরো বলেন, এরশাদ স্বৈরাচারের পতনের পর বিগত ৩৩ বছর আওয়ামী লীগ এবং বিএনপিকে মানুষ ক্ষমতায় আসতে এবং যেতে দেখেছে। কিন্তু দেশে গনতন্ত্র আসেনি। মানুষের ভোটাধিকারও নির্বষনে চলেগেছে। এদের ক্ষমতার রাজনীতি দেশ-ও জনগণকে জিম্মি করে রেখেছে। এদের অপরাজনীতির হাত থেকে জনগণ ও দেশকে উদ্ধার করতে হলে শ্রমিক কৃষক মেহনতী মানুষ ও পেশাজীবী মধ্যবিত্তদের বিকল্প শক্তি সমাবেশ ও বিকল্প ক্ষমতা কেন্দ্র গড়ে তুলতে হবে।
তিনি বলেন, মুক্ত বাজারের সিন্ডিকেট হয়, দেশে দেশে মুক্তবাজার নীতি ব্যর্থ হয়েছে এবং হচ্ছে। তাই বিকল্প অর্থনীতি গ্রহণ করতে হবে, রেশনিং ও গণবন্টন ব্যবস্থা সরকারিভাবে চালু করতে হবে, ব্যাবসায়ীদের হাতে এক তরফাভাবে ব্যবসা তুলে দেয়া যাবেনা। ক্ষেতমজুরদের সারা বছরের কাজের নিশ্চয়তা, ষাটোর্ধ বয়স্কদের বিনা জামানতে পেনশনভাতা ও কায়েমী স্বার্থবাদীদের হাত থেকে খাস জমি উদ্ধার করতে হবে।
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লাকী আকতার বলেন, শাসক গোষ্ঠী মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। শাসক গোষ্ঠী এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে যে, এ সরকারসহ কোন দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন করার পরিস্থিতি নেই।
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)
দক্ষিণ জেলার সভাপতি অধ্যাপক কানাই লাল দাশ জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পেতে ব্যবস্থা পাল্টাতে হবে এবং আওয়ামী লীগ-বিএনপির মেরুকরণের বাহিরে বাম গণতান্ত্রিক বিকল্প শক্তি গড়ে তুলতে হবে। নির্বাচন ব্যবস্থার আমুল সংস্কার করতে হবে। দুর্নীতি-লুটপাট, দলীয়করণ বন্ধ করাসহ বিদেশে পাচারকৃত টাকা উদ্ধার, ঋণখেলাপী- ব্যাংক লোপাটকারীদের টাকা আদায় করতে হবে।
সিপিবি উপজেলা সভাপতি কমরেড অলক দাশের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক মঞ্জুর সঞ্চালনায় সম্মেলনের উদ্বোধক ছিলেন প্রকৌশলী সামশুদ্দিন আহমদ, প্রধান বক্তা ছিলেন,
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)
দক্ষিণ জেলার সভাপতি অধ্যাপক কানাই লাল দাশ, সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান মাষ্টার শহীদুল আলম, অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কৃষক সমিতির সহ সভাপতি  মুক্তিযোদ্ধা পুলক কুমার দাশ, সাবেক জেলা সভাপতি আহমদ নবী, খেলাঘর কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম, বোয়ালখালী উপজেলা সিপিবির সভাপতি অধ্যাপক কামাল আবু নাসের, সাধারণ সম্পাদক সাহাব উদ্দিন সাইফু, চন্দনাইশ উপজেলার সাধারন সম্পাদক শিমুল ধর, নারীনেত্রী মদিনা বেগম প্রমুখ।
পরে একটি মিছিল পটিয়া সদরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ মিনারে এসে শেষ হয়।

Related Articles